Tuesday, March 23, 2010

সেন্ট মার্টিনে বিরল গোলাপি শালিক

খসরু চৌধুরী | তারিখ: ২৪-০৩-২০১০
বাংলাদেশে আসা পরিযায়ী পাখিদের মধ্যে অত্যন্ত বিরল একটি প্রজাতি হচ্ছে গোলাপি শালিক। ইংরেজি নাম রোজি স্টার্লিং (Sturnus roseus)। এ কারণেই স্থানীয় পাখিপ্রেমীরা একে খুব বেশি দেখার সুযোগ পান না।

জীববিজ্ঞানী রেজা খান সম্প্রতি নারিকেল জিঞ্জিরা (সেন্ট মার্টিন) দ্বীপের দক্ষিণ-পূর্ব কোণে আটটি গোলাপি শালিক দেখতে পান। শালিকগুলো দেখা যায় উজাড় হওয়া ম্যানগ্রোভ বন ও দ্বীপের সবচেয়ে উঁচু স্থান মুড়া এলাকায়।

একটি বাদে সব কটি শালিকের গায়ে ছিল শীতপালক, দেহের উপরিভাগে লালচে গোলাপি আভা। মিলন-ঋতুতে গোলাপি হয়ে ওঠে বলে এদের এ নাম। এ সময়টা এরা মধ্য এশিয়া ও ইউরোপে কাটায়।

আকারে গোলাপি শালিক আমাদের চেনা গো-শালিকের সমান। কিন্তু এদের রয়েছে মাথার ঝুঁটি ও রঙের বাহার।

রেজা খানের দেখা পাখিগুলো ব্যস্ত ছিল খাবার খোঁজায়। কিন্তু দ্বীপে তাদের পছন্দের খাবার খুব সামান্যই পাওয়া যাচ্ছিল। গোলাপি শালিকের পছন্দ শাঁসালো ফল, বীজ ও ক্ষুদ্র প্রাণী—মূলত কীটপতঙ্গ। ফলে তাদের গাছ অথবা মাটি উভয় স্থানেই দেখা যেতে পারে। পর্যটকেরা দ্বীপের দক্ষিণ প্রান্তের ঝেঝাপে আকীর্ণ ছোট বনটিতে ঘুরতে যান না বলে পাখিগুলো নিশ্চিন্তে ছিল।

সেন্ট মার্টিনেই ১৯৮০ সালে দেশের মধ্যে প্রথম দেখা যায় কালো শালিক। একটি পাখি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান বিভাগের জন্য সংগ্রহ করা হয়।
দ্বীপটিতে গোলাপি শালিক, ভাতশালিক ও ঝুঁটিশালিক এখনো যথেষ্ট সংখ্যায় আছে। তবে কাঠশালিকের সংখ্যা বেশ কমে গেছে।

No comments: